পরামর্শ দিয়েছেন

চৌধুরী তাসনীম হাসিন
ডায়েটিশান ও নিউট্রিশন স্পেশালিস্ট

শেয়ার এবং প্রিন্ট করুন

প্রতিদিনের খাবারে থাকুক ভিটামিন-সি

নানা ধরণের ভিটামিন ও খনিজ দেহে নানা রকমের প্রয়োজনে দরকার পড়ে। এই ভিটামিন ও খনিজ উপাদানের তালিকায় গুরুত্বপূর্ণ একটি নাম হলো ভিটামিন-সি ।
ভিটামিন-সি’কে দেহের সুরক্ষা উপাদান বলা ভুল হবে না। স্বাভাবিক রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতাকে শক্তিশালী করে বিভিন্ন রোগ থেকে দেহকে মুক্ত রাখতে সাহায্য করে এটি। এছাড়াও বিভিন্ন শারীরিক ক্রিয়া সচল রাখতে এবং বিভিন্ন তন্ত্রের স্বাস্থ্য ভালো লাগে। অতি গুরুত্বপূর্ণ এই ভিটামিনটিও পরিচিত অনেক খাদ্যেই প্রচুর পরিমাণে পাওয়া যায়। তবে দেহের জন্য পর্যাপ্ত পরিমাণ ভিটামিন-সি নিশ্চিত করতে হলে প্রতিদিনের খাবার খাওয়ার ব্যাপারে হতে হবে সচেতন।

ভিটামিন-সি এর উপকারিতা:
⦁ রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতাকে শক্তিশালী করে তোলে এবং নানা রোগবালাইয়ের বিরুদ্ধে লড়াই করতে দেহকে প্রস্তুত করে।
⦁ ফলমূল ও শাকসবজি থেকে আয়রন শোষণ করতে সাহায্য করে।
⦁ খাবারের প্রোটিন ভেঙ্গে দেহের শোষণের জন্য উপযোগী করে তুলে।
⦁ দেহের ক্ষত বা ঘা সারাতে মুখ্য ভূমিকা পালন করে।
⦁ পরোক্ষভাবে দেহে রক্ত উৎপাদন ও রক্তনালী সুগঠিত করে।
⦁ বিভিন্ন প্রদাহ দূর করতে সহায়তা করে।
⦁ নিজে এন্টিঅক্সিডেন্ট উপাদান হিসেবে কাজ করে এবং দেহে অন্য এন্টিঅক্সিডেন্ট উৎপাদনে ভূমিকা রাখে।
⦁ ‘ফ্রি র‍্যাডিক্যাল’ থেকে কোষকে সুরক্ষিত রাখে এবং দেহে দীর্ঘস্থায়ী রোগ বাসা বাঁধতে দেয় না।
⦁ আর্থ্রাইটিসের ঝুঁকি কমায়।
⦁ এছাড়াও ভিটামিন সি হৃদরোগ ও কয়েক ধরণের ক্যান্সারের ঝুঁকি কমায় বলে গবেষকেরা ধারণা করেন।

ভিটামিন-সি এর অভাবে যা হতে পারে:

⦁ ক্লান্তি ও অবসাদ
⦁ রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা কমে যাওয়া
⦁ চুল ও ত্বকের রুক্ষতা ও মসৃণভাব হারানো
⦁ মাড়ি ফুলে যাওয়া ও রক্তপাত হওয়া
⦁ দেহের বিভিন্ন জয়েন্টে রক্তক্ষরণ ও তীব্র ব্যাথা
⦁ ক্ষত শুকাতে দীর্ঘ সময় ব্যয় হওয়া
⦁ মেজাজ খিটখিটে থাকা
⦁ হাড় ও পেশির দুর্বলতা
⦁ দীর্ঘ সময় ধরে ভিটামিন সি এর অভাবে ভুগলে স্কার্ভি রোগ হতে পারে, যার ফলে মৃত্যুও হতে পারে।

ভিটামিন-সি এর উৎস:
বিভিন্ন ফল: শুধুমাত্র টক ফলেই যে ভিটামিন সি থাকে, এমন ধারণা সম্পূর্ণ ভুল। বিভিন্ন মিষ্টি ফলেও অনেক সময় প্রচুর পরিমাণে ভিটামিন সি পাওয়া যায়। বরই, পেয়ারা, আমলকি, আনারস, লেবু, পেঁপে, জাম, লিচু, কামরাঙ্গা, আমড়া, কমলা, টমেটো ইত্যাদি ভিটামিন সি সমৃদ্ধ ফল দেহের জন্য দরকারি ভিটামিনের যোগান দিতে সক্ষম।

আলু ও মিষ্টি আলু: অনেক গবেষক বলে থাকেন, মিষ্টি আলুতে সমপরিমাণ কমলার চেয়ে বেশি ভিটামিন-সি থাকে। আলু ও মিষ্টি আলু ভিটামিন সি এর এমন একটি উৎস, যেটিতে রান্নার পরেও ভিটামিন সি একই পরিমাণে পাওয়া যায়। দেহের প্রয়োজনীয় ভিটামিন সি এর অনেকটাই আলু থেকে পাওয়া যেতে পারে।

কাঁচামরিচ: কাঁচামরিচে থাকে প্রচুর ভিটামিন সি, যা দেহের রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতাকে আরো জোরদার করে এবং ত্বক ভালো রাখে।
বিভিন্ন শাকসবজি: ফুলকপি, উচ্ছে, করলা, ব্রকলি, ক্যাপসিকাম, মূলা ও মূলা শাক, সজিনা পাতা, লাউশাক, ধনে পাতা ইত্যাদি ভিটামিন-সি সমৃদ্ধ।
স্বাভাবিক রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতাকে শক্তিশালী করে বিভিন্ন রোগ থেকে দেহকে মুক্ত রাখতে সাহায্য করে এবং দেহ গঠনে ভিটামিন-সি এর ভূমিকা প্রচুর। তাই আপনার বাচ্চার প্রতিদিনের খাবারে রাখুন ভিটামিন সি।

Leave a Reply