পরামর্শ দিয়েছেন

MD Shafayet Hossain Shohan

শেয়ার এবং প্রিন্ট করুন

গরমে সুস্থ থাকতে কেমন খাবার খাওয়া চাই?

ইদানীং অনেক গরম পড়েছে তাই না? চারিদিকে গরমের দাবদাহে জীবন প্রায় অতিষ্ঠ। কিন্তু জীবন-জীবীকার খোঁজে আমাদের ঘর থেকে বের হতেই হবে। আর এই প্রচন্ড গরমে অনেকেই অসুস্থ হয়ে পড়ছে। সুস্থ-স্বাভাবিক জীবন পরিচালনায় আমাদের দৈনন্দিন খাবারের উপর খেয়াল রাখা চাই। এই গরমে আমাদের কী কী অসুবিধা হচ্ছে ও এই দাবদাহ থেকে বাঁচতে কেমন হওয়া চাই আমাদের প্রতিদিনের খাবার, তা নিয়েই চলুন কথা বলা যাক!

তীব্র গরমে আমাদের কী কী অসুবিধা হয়?

গরম অনেক তীব্র হওয়ায়, আমাদের দেহ থেকে ঘামের মাধ্যমে প্রয়োজনীয় সকল উপাদান বের হয়ে যায়। যার ফলে পানিশূন্যতা ও শারীরিক দূর্বলতার সাথেও আমাদের বেশ কিছু সমস্যা দেখা দেয়। যেমনঃ

  1. ঘামের মাধ্যমে দেহ থেকে সোডিয়াম ও পটাশিয়াম কমে যাওয়া
  2. বমি হওয়া
  3. জ্বর
  4. হজম ও পেট ফাঁপা জনিত সমস্যা
  5. ডায়রিয়া ও আমাশয়
এই সকল সমস্যা থেকে দূরে থাকতে আমাদের রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা বাড়াতে হবে। সে জন্য সবার আগে আমাদের প্রতিদিনের খাবার তালিকায় পরিবর্তন আনতে হবে।
গরমে সুস্থ থাকতে খাবার যেমন হওয়া চাই

পানি শুন্যতারোধে যেমন খাবারঃ গরমে যেহেতু অতিরিক্ত ঘাম হয়, সেহেতু পানিশুন্যতার সমস্যায় সবাই ভোগে। আর এই পানি শুন্যতা থেকে সৃষ্টি হয় ক্লান্তি, দুর্বলতা, মাথা ব্যথা, নিঃশ্বাসের দুর্বলতা, অনিয়মিত হৃদস্পন্দন, বুকে ব্যথা, ফ্যাকাসে ত্বক ও নখ আর হাত-পা ঠান্ডা হয়ে যাওয়ার সমস্যা। তাই, সবার আগে আমাদের পানি শুন্যতা রোধ করতে হবে। দেহে পানির চাহিদা মেটাতে আমাদের খাওয়া উচিত বেশি বেশি পানি, বিভিন্ন ফলের শরবত ও পানি জাতীয় ফল যেমনঃ তরমুজ, বাঙ্গি, ডাব ইত্যাদি।

হজমে চাই সহজপাচ্য খাবার

এই গরমে মাছ, মাংস, বেশি তেল দিয়ে ভাজি খাওয়া কমিয়ে আমাদের সহজপাচ্য খাবার খাওয়া উচিত। তাই আপনার দৈনন্দিন খাবার তালিকায় যুক্ত করুন লাউ, মিষ্টি কুমড়া ও চাল-কুমড়া, পেঁপের তরকারি। এই সকল সবজি আমাদের দেহে পানির চাহিদাও পূরণ করে থাকে। এতে শরীর ঠান্ডা থাকবে আর হিট স্ট্রোকের ঝুঁকিও কমবে।

প্রতিদিন সালাদ ও টক দই

খাবার টেবিলে প্রতিদিন সালাদ রাখুন। শসার সালাদ, মিক্সড ফলের সালাদ কিংবা আলাদা করে টক দই না খেয়ে শসার সাথেই টক দই মিশিয়ে সালাদ বানিয়ে নিতে পারেন। খেতে তো দারুণ লাগবেই, সেই সাথে পূরণ হবে দেহের পুষ্টি চাহিদা! সালাদের পাশাপাশি প্রচুর শাক-সবজি রাখুন যা দেহের ফাইবারের চাহিদা পূরণ করবে।

স্বাস্থ্যকর খাবার খাওয়ার সাথে সাথে দৈনন্দিন সঙ্গী করুন ভালো কিছু অভ্যাস। প্রতিদিন একটি নির্দিষ্ট সময়ে হাঁটার অভ্যাস করুন। সবচেয়ে ভালো হয় যদি ভোরে হাঁটার অভ্যাস করতে পারেন। ফাস্ট ফুড ও  অতিরিক্ত তেল জাতীয় খাবার এড়িয়ে চলার চেষ্টা করুন। আজ এ পর্যন্তই! আবারও সুস্থতা ও পুষ্টি কথা নিয়ে কথা হবে। সে পর্যন্ত ভালো থাকুন, সুস্থ থাকুন!

Leave a Reply